২৬ জানুয়ারি হরিয়ানার জিন্দে আয়োজিত হবে কিষাণ মহাপঞ্চায়েত

জয় কিষাণ ডেস্ক
লিখেছেন জয় কিষাণ ডেস্ক পড়ার সময় 2

নিজস্ব প্রতিবেদন: শনিবার কর্নালে গুরুদুয়ারা ডেরা কর সেবায় সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার জাতীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হল। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে আগামী ২৬ জানুয়ারি কোনো সরকারি কর্মসূচিতে বাধা না দিয়ে সমস্ত জেলায় জাতীয় পতাকা উত্তোলনের পর প্রজাতন্ত্র দিবস পালন, ট্রাক্টর র‍্যালি ও সম্মেলন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সেদিন জেলা কালেক্টরদের কাছে স্মারকলিপিও জমা দেওয়া হবে। হরিয়ানার জিন্দে সেদিন বিশাল কিষাণ মহাপঞ্চায়েত আয়োজিত হবে। মার্চ মাসে দিল্লিতে একটি কিষাণ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে, যার তারিখ ঘোষণা করা হবে ২৬ জানুয়ারি জিন্দে।

শনিবার সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার জাতীয় বৈঠক থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে কৃষক ঐক্য শক্তিশালী প্রদর্শনের মাধ্যমে জিন্দে মহাপঞ্চায়েত সংঘটিত হবে এবং ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা ঘোষণা করা হবে। মহাপঞ্চায়েত ভারতীয় সংবিধান এবং গণতন্ত্রকে আক্রমণকারী ফ্যাসিবাদী, সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে একটি দৃঢ় বার্তা পাঠাবে এবং কৃষকদের সমস্যাও উত্থাপন করবে। এদিনের সভায় বিজেপি সরকারের কৃষক বিরোধী অবস্থানের কথা বলা হয় এবং এমএসপির জন্য আইনি গ্যারান্টি দাবি করা হয়। এসকেএম সংসদে বিদ্যুৎ আইন সংশোধনী বিল পেশ করে কৃষকদের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতার জন্য বিজেপি সরকারের নিন্দা করেছে যা তারা আগে প্রত্যাহার করার আশ্বাস দিয়েছিল। সভায় হরিয়ানার বিজেপি সরকার কর্তৃক কৃষকদের উপর চাপিয়ে দেওয়া গ্রামীণ উন্নয়ন সেস প্রত্যাহারের দাবিও জানানো হয়।

এসকেএম লখিমপুর খেরির দোষীদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া এবং মন্ত্রিসভা থেকে অজয় মিশ্র টেনিকে অপসারণের দাবি জানানো হয়। জেলবন্দি কৃষকদের মুক্তির দাবি তোলা হয়। এদিনের সভায় কৃষকদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিও জানানো হয়। এসকেএম পাঞ্জাবি গায়ক কানওয়ার গ্রেওয়াল এবং রঞ্জিত বাওয়া, যাঁরা দুজনেই কৃষক আন্দোলনকে সমর্থন করেছিলেন, তাঁদের ওপর কেন্দ্রীয় সংস্থা এবং আইটি বিভাগের অভিযানের নিন্দা করে। এসকেএম সারা দেশে কৃষকদের সংগ্রামে সংহতি প্রকাশ করে।

এই নিবন্ধটি শেয়ার করুন
মতামত দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *