ইউনিয়ন বাজেটে ক্ষোভ প্রকাশ করল এসকেএম

জয় কিষাণ ডেস্ক
লিখেছেন জয় কিষাণ ডেস্ক পড়ার সময় 2

নিজস্ব প্রতিনিধি: আজ সংসদে অর্থমন্ত্রীর ঘোষণা করা কেন্দ্রীয় বাজেট ২০২৩-এর প্রতিক্রিয়ায় এসকেএম তার শোক ও বিহ্বলতা প্রকাশ করেছে ৷ যদিও এটি সর্বজনীনভাবে জানা যায় যে বিজেপি নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় সরকার কৃষিকাজ এবং কৃষকদের অর্থনৈতিকভাবে অবহেলা করেছে, এসকেএম আশা করেছিল যে দিল্লিতে কৃষকদের দীর্ঘকালীন এবং দৃঢ় প্রতিবাদের পরে, ক্ষমতায় থাকা দলটি কৃষিক্ষেত্রের গুরুত্ব উপলব্ধি করবে এবং গ্রামীণ কৃষক সমাজের আয় ও ভবিষ্যৎ সুরক্ষিত করার প্রয়োজন অনুভব করবে, যারা কিনা ভারতের জনসংখ্যার একটি বড় অংশ গঠন করে।

বাজেটের যে বিষয়গুলি নিয়ে এসকেএমের বিরোধীতা সেগুলি হল: ইউনিয়ন বাজেট ২০২৩ কৃষকদের আয় দ্বিগুণ করার বিষয়ে নীরব, ইউনিয়ন বাজেট ২০২৩ স্বামীনাথন কমিশনের সুপারিশ অনুসারে ফসলের ন্যূনতম সহায়ক মূল্যের (এমএসপি) বর্তমান অবস্থা এবং কৃষকরা যাতে এমএসপি-এর আইনি গ্যারান্টি পান তা নিশ্চিত করার জন্য কী করতে হবে, তা নিয়ে নীরব, কেন্দ্রীয় বাজেট ২০২৩ পিএম ফসল বিমা যোজনার বিষয়ে নীরব, সরকার মহাত্মা গান্ধি ন্যাশনাল রুরাল এমপ্লয়মেন্ট গ্যারান্টি স্কিম (MNREGS)-এর জন্য বরাদ্দ ব্যাপকভাবে ছাঁটাই করেছে, প্রধানমন্ত্রী কিষাণ সম্মান নিধির জন্য বরাদ্দ ২০২২ সালের ৬৮,০০০ কোটি টাকা থেকে কমিয়ে এই বাজেটে ৬০,০০০ কোটি টাকা করা হয়েছে, সারের উপর ভর্তুকি ২০২২ সালের ২,২৫,০০০ কোটি টাকা থেকে কমিয়ে এই বাজেটে ১,৭৫,০০০ কোটি টাকা করা হয়েছে, আগের ঘোষণাগুলি ভুলে যাওয়া এবং হারিয়ে যাওয়ার পরও সরকার কৃষি ত্বরণ তহবিলের (Agriculture Accelerator Fund) মতো নতুন তহবিল ঘোষণা করছে, ৪ বছর আগে ঘোষিত ২২,০০০টি গ্রামের হাটগুলিকে ৩ বছরের মধ্যে মান্ডিতে রূপান্তর করার পরিকল্পনার মতো আগের স্কিমগুলি ব্যর্থ হওয়ার পরেও সরকার নতুন সঞ্চয়স্থান এবং বিপণন প্রকল্পগুলি ঘোষণা করছে।

এসকেএমের দাবি, সরকার যেন কৃষকদের বোকা বানানো বন্ধ করে এবং এমএসপির আইনি গ্যারান্টি, শস্য বিমা, ইনপুট খরচ হ্রাস এবং ইনপুটগুলির স্থির প্রাপ্যতার মতো কৃষকদের জটিল সমস্যাগুলির সমাধানের ওপর গুরুত্ব আরোপ করে। যেহেতু কেন্দ্রীয় বাজেট ২০২৩ এই সমস্যাগুলির সমাধান করে না এবং এটি স্পষ্ট যে এমনকি প্রধানমন্ত্রীর নামে নামকরণ করা ফ্ল্যাগশিপ স্কিমগুলিও ব্যর্থ হচ্ছে, এসকেএম সরকারকে প্রয়োজনীয় কাজ করার আহ্বান জানিয়েছে যাতে কৃষকদের মুখোমুখি হতে না হয় এবং সরকারকে তার দায়িত্ব পালনের জন্য বাধ্য করতে না হয়।

ট্যাগ করা হয়েছে: , ,
এই নিবন্ধটি শেয়ার করুন
মতামত দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *