জয় কিষাণ: ২৭ সেপ্টেম্বর

জয় কিষাণ ডেস্ক
লিখেছেন জয় কিষাণ ডেস্ক পড়ার সময় 4

সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার দাবি তুলে ধরতে সাংসদদের কাছে আহ্বান

ঐতিহাসিক কৃষক আন্দোলনে টানা ৩৮৩ দিন ধরে কৃষকরা দিল্লির রাজপথে অবস্থান করেছেন। এই অবস্থান প্রত্যাহার করা হয় সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার শর্তের পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দিষ্ট কিছু প্রতিশ্রুতির কারণেই। কিন্তু কার্যত মোর্চাকে দেওয়া কোনো প্রতিশ্রুতিই পূরণ করেনি কেন্দ্রীয় সরকার। ক্ষুব্ধ দেশের কৃষক ও খেতমজুর সমাজ। এর প্রতিবাদে তারা ফের আন্দোলনে নামার কথাও ভাবছে। এই পরিস্থিতিতে নিজেদের দাবিদাওয়া ও প্রতিবাদের স্বরকে সংসদের দুটি কক্ষে পৌঁছে দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে লোকসভার ৪২ জন সাংসদ এবং রাজ্যসভার ১৬ জন সাংসদের কাছে স্মারকলিপি পাঠাল সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা।

যেহেতু, সাংসদরা তাঁদের নির্বাচনী এলাকার সকল কৃষকদের প্রতিনিধিত্ব করেন, তাই তাঁদের কাছে স্মারকলিপি পেশ করে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা অনুরোধ জানিয়েছে, তাঁরা যেন অবিলম্বে সংসদে এই বিষয়টি উত্থাপন করেন এবং প্রতিশ্রুতি পূরণের জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করেন।

দিল্লিতে ২০২০-২১ সালের ঐতিহাসিক ৩৮৩ দিনের কৃষক আন্দোলন কেন্দ্রীয় সরকারের লিখিত প্রতিশ্রুতির ভিত্তিতে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছিল। প্রতিশ্রুতি ছিল, এমএসপি কার্যকর করার জন্য সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার অংশগ্রহণে একটি কমিটি তৈরি করে আইনের খসড়া ও পাস করানো হবে। সংসদে উত্থাপন করার আগে বিদ্যুৎ সংশোধনী বিলের বিষয়ে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার সঙ্গে পরামর্শ করা হবে। আন্দোলনে যোগ দেওয়া নেতৃত্ব এবং কৃষকদের বিরুদ্ধে হওয়া সমস্ত মামলা প্রত্যাহার করা হবে। আন্দোলনের সময় প্রাণ হারানো কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে এবং খড় পোড়ানোর জন্য কৃষকদের উপর আরোপিত সমস্ত দায় আইন থেকে সরানো হয়েছে তা নিশ্চিত করা হবে ।

প্রতিশ্রুতিগুলি দেওয়ার পরে প্রায় ১০ মাস পেরিয়ে গেছে, একটিও পূরণ হয়নি। ফলে সারা দেশে কৃষকদের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে এবং কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে আরেকটি প্রতিবাদ আন্দোলন শুরু করার দাবি অনেক মহল থেকে উঠে এসেছে।

কাশ্মীরের আপেল চাষিদের পাশে মেহবুবা মুফতি, প্রশাসনকে চরম হুঁশিয়ারি

জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসন অকারণেই আপেল বোঝাই ট্রাকগুলোকে রাস্তায় আটকে রেখে আপেল চাষি ও বিক্রেতাদের হেনস্থা করছে। যে কারণে পচে যাচ্ছে বস্তা বস্তা আপেল। এই কারণে আগলার শোপিয়ানে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন আপেল চাষি ও বিক্রেতারা। মঙ্গলবার এই বিক্ষোভে সংহতি জানাতে উপস্থিত হন পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রধান এবং জম্মু কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি।

জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তণ মুখ্যমন্ত্রী এদিন জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসন ও কেন্দ্রীয় সরকারের উদ্দেশে বলেন, “শ্রীনগর-জম্মু হাইওয়েতে আপেল বোঝাই ট্রাক থামানোর ফলে প্রচুর আপেল পচে গেছে। আপনারা কাশ্মীরকে একটি উন্মুক্ত কারাগারে পরিণত করেছেন, আমাদের অর্থনীতিকে ধ্বংস করেছেন। আমি প্রশাসনকে হুঁশিয়ারি দিচ্ছি যদি তারা অবিলম্বে ট্রাকের জন্য রাস্তা খুলে না দেয়, আমি আমাদের কর্মীদের সাথে নিয়ে বিক্ষোভে বসব।”

মুফতি আরো বলেন জম্মু-কাশ্মীরের প্রশাসনিক প্রধানের জানা উচিত, কাশ্মীরের লাখো মানুষ আপেল শিল্পের উপর নির্ভরশীল। কৃষকরা আপেল চাষের জন্য ঋণ নিয়েছেন। সেই ঋণ তাঁদের পরিশোধ করতে হবে। কিন্তু এভাবে আপেল পচে নষ্ট হয়ে যাওয়ার জন্য কি প্রশাসন তার ক্ষতিপুরণ দেবে? কাশ্মীরিদের শায়েস্তা করতে যেভাবে তাঁদের রুটিরুজিতে হামলা চালানো হচ্ছে, তা বন্ধ করতে হবে। নচেৎ রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করতে বাধ্য হবো।”

সূত্র- দ্য কাশ্মীরীয়াত

বিশদে জানতে এখানে ক্লিক করুন

পরিবেশ দূষণের বিরুদ্ধে পাঞ্জাবের ফিরোজপুরে কৃষকদের বিক্ষোভ

পাঞ্জাবের ফিরোজপুরে জিরা মহকুমার মনসুরওয়ালা গ্রামে ইথানল প্ল্যান্ট বন্ধের দাবিতে মঙ্গলবার একাধিক কৃষক সংগঠনের নেতৃত্বে শত শত কৃষক বিক্ষোভ মিছিল করল। এদিন গাড়ি, ট্রাক্টর এবং মোটরসাইকেল চালিয়ে মনসুরওয়ালা গ্রামের ধর্নামঞ্চ থেকে মিছিল শুরু করে। বিভিন্ন গ্রাম প্রদক্ষিণ করে মিছিলটি ইথানল প্ল্যান্টের বাইরে ধর্নামঞ্চের ফিরে আসে। খামার ইউনিয়ন নেতাদের অভিযোগ, জনগণের স্বার্থ সুরক্ষিত রাখার বদলে কর্পোরেট সংস্থাগুলোকে সমর্থন করছে সরকার। ইথানল প্ল্যান্টের মতো আরও বেশ কয়েকটি কারখানার মাধ্যমে রাজ্যের বায়ু এবং জল দূষিত হচ্ছে

সূত্র- দ্য ট্রিবিউন

বিশদে পড়তে এখানে ক্লিক করুন

কৃষকের থেকে লুট: ২৬ সেপ্টেম্বর

ট্যাগ করা হয়েছে:
এই নিবন্ধটি শেয়ার করুন
মতামত দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *