জয় কিষাণ: ২৯ অক্টোবর ২০২২

জয় কিষাণ ডেস্ক
লিখেছেন জয় কিষাণ ডেস্ক পড়ার সময় 4

চাষিদের দাবি মেনে নিতে বাধ্য হল পাঞ্জাব সরকার, উঠল কৃষক অবস্থান

কৃষকদের আন্দোলনের চাপে নতিস্বীকার করে কার্যত কৃষকদের দাবিগুলি মেনে নিতে বাধ্য হল পাঞ্জাব সরকার। আর তার জেরেই উঠে গেল কৃষক বিক্ষোভ।শুক্রবার দীর্ঘ ২০ দিন পর পাঞ্জাবের সাঙ্গরুর জেলায় মুখ্যমন্ত্রী ভগবন্ত মানের বাসভবনের সামনে থেকে কৃষক অবস্থান প্রত্যাহার করল ভারতীয় কিষাণ ইউনিয়ন (একতা-উগ্রাহান)।

জানা গেছে, সার্কিট হাউসে কৃষিমন্ত্রী কুলদীপ ধালিওয়ালের সাথে বিকেইউ-এর বৈঠকের পরে এই আন্দোলন প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। মনে করা হচ্ছে কৃষকদের আন্দোলনের চাপে নতিস্বীকার করে কার্যত কৃষকদের দাবিগুলি মেনে নিতে বাধ্য হল পাঞ্জাব সরকার।

যদিও কৃষিমন্ত্রী বা বিকেউ কেউই তাঁদের ‘ঐক্যমত’ নিয়ে বেশি কিছু বলতে চাননি। পাঞ্জাবের কৃষিমন্ত্রী বলেন, আগামীকাল বিস্তারিত ঘোষণা করা হবে। বিকেইউ নেতা যোগিন্দর সিং উগ্রাহান বলেন, “সরকার ইতিমধ্যে দাবি মেনে নিয়েছে কিন্তু কোনো লিখিত আশ্বাস দেওয়া হয়নি। এখন তারা আমাদের কৃষকদের ১২টি দাবি কখন ও কীভাবে পূরণ করবে তা বিস্তারিত জানাবে”।

প্রসঙ্গত, ৯ অক্টোবর থেকে কৃষকেরা তাঁদের দাবি সমূহ নিয়ে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবনের সামনে অবস্থান বিক্ষোভ করছিলেন।  

সূত্র- দ্য ট্রিবিউন

বিশদে পড়তে এখানে ক্লিক করুন

সোলাপুরে ভালো দামের দাবিতে আখ চাষিদের বিক্ষোভ

গত শনিবার থেকে মহারাষ্ট্রের সোলাপুরে আখচাষিদের প্রতিবাদে বিপাকে পড়েছে মহারাষ্ট্র সরকার। কৃষকদের বক্তব্য, ফসলের ভালো দাম মিলছে না। তাই তাঁদের দাবি না মেটা পর্যন্ত ‘কোলাপুর মডেল’কে অনুসরণ করে তাঁদের ফসল মিলে পাঠাতে অস্বীকার করেছেন।

প্রসঙ্গত, কৃষকরা প্রথম কিস্তিতে প্রতি টন ২৫০০ টাকা এবং সর্বমোট ৩১০০ টাকা প্রতি টন দাবি করছেন। বর্তমানে, তাঁদের প্রতি টন প্রায় ২২০০ টাকা দেওয়া হচ্ছে।

সোলাপুর জেলা ওশদার সংঘর্ষ সমিতির আহ্বায়ক শচীন পাতিল বলেন, “যতক্ষণ পর্যন্ত মিল মালিকরা আমাদের দাবির সঙ্গে একমত না হবেন, আমরা তাঁদের কার্যক্রম শুরু করতে দেব না”। যদিও সোমবার, সোলাপুর কালেক্টর আখ চাষিদের সমস্যাগুলি নিয়ে আলোচনা করার জন্য মিল মালিক এবং আন্দোলনকারী কৃষকদের একটি বৈঠক ডাকা হয়েছে বলেও জানান।

সূত্র- দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

বিশদে পড়তে এখানে ক্লিক করুন

ধান সংগ্রহে দেরি হওয়ায় কার্নালে চাষিদের প্রতিবাদ

সমগ্র দেশে বিজেপি’র কৃষক বিরোধী নীতি কৃষকদের বিপাকে ফেলেছে। শুধু কেন্দ্রে নয়, যে কটি রাজ্যে বিজেপি সরকার ক্ষমতায় সেখানেও একই অবস্থা। হরিয়ানার সরকারের বিরুদ্ধে বহুদিন ধরেই কৃষকরা সরব। ধান সংগ্রহে বিলম্ব হওয়ায় এবং কার্নাল শস্যের বাজারে ঢোকার গেট পাস না পাওয়ার জন্য শুক্রবার হরিয়ানার কার্নালে ৪৪ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করলেন কৃষকরা।

কৃষক ও আড়তদারদের অভিযোগ, ২২ অক্টোবরের পর থেকে সরকারি সংস্থাগুলি ধান সংগ্রহে আগ্রহ দেখাচ্ছে না। শুক্রবার, জেলা প্রশাসন পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত গেট পাস দেওয়া বন্ধ করে দেয়, এর জেরেই বিক্ষোভ শুরু করেন কৃষকেরা। মান্ডি সম্পাদক সুন্দর কাম্বোজ বলেন, হরিয়ানা সরকারের কঠোর নির্দেশ রয়েছে যে পণ্য এবং কৃষকদের যথাযথ যাচাইয়ের পরেই ক্রয়ের অনুমতি দেওয়া হবে।

যদিও দাবিগুলি পর্যালোচনা করে তা মেনে নেওয়ার ব্যাপারে ভাবনাচিন্তা শুরু হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয় প্রশাসনের তরফে। এর জেরেই কৃষকরা অবরোধ তুলে নেন।

সূত্র- হিন্দুস্তান টাইমস

বিশদে পড়তে এখানে ক্লিক করুন

ট্যাম্বো শিল্পের মাধ্যমে অশোকচক্র নির্মাণ করলেন কৃষক

ট্যাম্বো আর্টের মাধ্যমে নিজের ক্ষেতে অশোকচক্র নির্মাণ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন বাম শাসিত কেরালার ওয়ানাডের থ্রিসসিলেরি এলাকার কৃষক জনসন ওলিয়াপ্পুরাম (৫৮)।

প্রসঙ্গত, ট্যাম্বো শিল্প বা ধান শিল্পের উত্স জাপানে খুঁজে পাওয়া যায়, যেখানে লোকেরা পছন্দসই শিল্পকর্ম তৈরি করতে বিভিন্ন জাতের এবং রঙের ধান রোপণ করেন। গত ছয় বছর ধরে, জনসন তাঁর জমিতে ট্যাম্বো শিল্পের মাধ্যমে বিভিন্ন নিদর্শন তৈরি করে চলেছেন। এ বছর তিনি চারটি ধানের বীজের জাত যেমন নজর ভাত, কালা ভাত, কাকি সালা এবং রামলি ব্যবহার করে অশোকচক্র তৈরি করেছেন।

তিনি ২০২০-২১ সালে রাজ্যের শ্রেষ্ঠ জৈব কৃষকের সম্মান লাভ করেন।
তিনি আশা করেন যে তাঁর এই পরীক্ষা আরও মানুষকে ধান চাষে আকৃষ্ট করবে।

সূত্র- দ্য হিন্দু

বিশদে পড়তে এখানে ক্লিক করুন

কৃষকের থেকে লুট: ২৮ অক্টোবর ২০২২

ট্যাগ করা হয়েছে:
এই নিবন্ধটি শেয়ার করুন
মতামত দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *