জয় কিষাণ: ১৮ নভেম্বর ২০২২

জয় কিষাণ ডেস্ক
লিখেছেন জয় কিষাণ ডেস্ক পড়ার সময় 5

১৯ নভেম্বর ফতেহ দিবস ও ২৬ নভেম্বর রাজভবন অভিযানের ঘোষণা সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার

কালা কৃষি আইন বাতিলের বর্ষপূর্তি উপলক্ষ্যে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা ১৯ নভেম্বর ফতেহ দিবস উদযাপন করবে। নয়া দিল্লিতে একটি সাংবাদিক সম্মেলনে বৃহস্পতিবার সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার নেতা দর্শন পাল একথা ঘোষণা করেন। সেই সঙ্গে কৃষক মঞ্চটি এও জানায়, ২৬ নভেম্বর ‘রাজভবন চলো’ অভিযান-এর ডাক দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, যেসব দাবিতে এই কর্মসূচির ডাক দেওয়া হয়েছে, সেগুলো হল, ১। সমস্ত ফসলের জন্য সব কৃষককে সি-২ প্লাস ৫০ শতাংশ হারে ন্যূন্যতম সহায়ক মূল্য প্রদানের বিষয়টি আইনিভাবে নিশ্চিত করতে হবে, ২। ঋণগ্রস্ত কৃষককে দেনার বোঝা থেকে মুক্তি দিতে ঋণ মকুব প্রকল্প চালু করা, ৩। বিদ্যুৎ সংশোধনী বিল ২০২০ প্রত্যাহার, ৪। লখিমপুর খেরিতে কৃষক ও সাংবাদিক হত্যায় অভিযুক্ত দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের রাষ্ট্রীয় প্রতিমন্ত্রী অজয় মিশ্রকে মন্ত্রীত্ব থেকে  বহিষ্কার করার পাশাপাশি তার বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ করা, ৫। প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে ফসলের ক্ষতির জন্য কৃষকদের দ্রুত ক্ষতিপূরণ দিতে ব্যাপক ফসল বিমা প্রকল্প কার্যকর করা, ৬। প্রান্তিক, ক্ষুদ্র ও মাঝারি স্তরের কৃষক এবং কৃষিমজুরদের জন্য মাসিক ৫ হাজার টাকার পেনশন চালু করা, ৭। কৃষক আন্দোলনের সময় চাষিদের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, ৮। কৃষক আন্দোলনে শহিদ কৃষকদের পরিবার পিছু ক্ষতিপূরণ।

এই সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন দর্শন পাল, হান্নান মোল্লা, যুধবীর সিং, অভীক সাহা এবং অশোক ধাওয়ালে।

পাঞ্জাবে কৃষকদের অনির্দিষ্টকালীন চাক্কা জ্যামের কর্মসূচি

পাঞ্জাবের অমৃতসরে বুধবার সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা অনির্দিষ্টকালীন চাক্কা জ্যামের ডাক দেয়। শয়ে শয়ে কৃষক ভারতীয় কিষাণ ইউনিয়ন (একতা)-এর নেতৃত্বে ভাণ্ডারী সেতুতে অনির্দিষ্টকালীন প্রতিবাদে শামিল হন। পাঞ্জাব সরকার খড় পোড়ানোর জন্য কৃষকদের জমির রেকর্ডে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিতে প্রস্তুত হচ্ছে, এমন খবরের পর বুধবার সন্ধ্যায় বিক্ষোভকারীরা চাক্কা জ্যাম অনির্দিষ্টকালের জন্য বাড়িয়ে দেন। এর ফলে সাধারণ মানুষ অসবিধার সম্মুখীন হন। কারণ অবরুদ্ধ সেতুটি অমৃতসর-দিল্লি জাতীয় মহাসড়কের মধ্যে অন্যতম প্রধান সংযোগকারী রাস্তা। সাধারণ মানুষের অসুবিধের কথা ভেবে, বিক্ষোভকারীরা গভীর রাতে অমৃতসরের ভাণ্ডারী সেতুতে স্বর্ণ মন্দিরের দিকে যাওয়ার রাস্তাগুলি থেকে অবরোধ তুলে নেওয়ার ঘোষণা করেন।

ভারতীয় কিষাণ ইউনিয়ন (একতা)-এর সভাপতি জাগজিত সিং ডাল্লেওয়াল বলেন, “আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ভাণ্ডারী সেতুর একপাশে আমাদের বিক্ষোভ চলবে”।তিনি আরো বলেন, “৬ অক্টোবর একটি বৈঠকের পর রাজ্য সরকার আশ্বাস দিয়েছে যে আমাদের দাবি পূরণ করা হবে। কিন্তু আমাদের কোনো দাবি তারা পূরণ করেনি। রাজ্য সরকার আমাদের রাস্তায় বসতে বাধ্য করছে”।

সূত্র- হিন্দুস্তান টাইমস

বিশদে পড়তে এখানে ক্লিক করুন

চিনিকল এখনও বন্ধ, পাঞ্জাবের মুকেরিয়ানে কৃষকদের বিক্ষোভ

পাঞ্জাবের মুকেরিয়ানে বুধবার কৃষক সংগঠনগুলির ডাকে একটি ‘চাক্কা জ্যাম’ কর্মসূচি পালন করা হয়। কৃষকদের অভিযোগ, মাসের পর মাস তাঁরা পাঞ্জাবের বিভিন্ন প্রান্তে শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করলেও পাঞ্জাব সরকার তাঁদের দাবি পূরণের ব্যাপারে উদাসীন। কৃষক নেতারা বলেন, “পাঞ্জাব সরকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল ৫ নভেম্বরের মধ্যে বেসরকারি চিনিকলগুলি খুলবে। কিন্তু রাজ্য এখনও চিনিকল খোলার ব্যাপারে কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না। সে কারণেই পাঞ্জাবের আখচাষি এবং অন্যান্য কৃষকেরা অনির্দিষ্টকালের জন্য রাস্তায় অবস্থান বিক্ষোভ করছেন”। এছাড়াও তিনি বলেন, “আমাদের নজরে এসেছে, এখন পর্যন্ত সমবায় সমিতিতে যে ডিএপি সার এসেছে তা চাহিদার মাত্র ৪০ থেকে ৪৫ শতাংশ”।

এই বিক্ষোভে বিকেইউ (সিরসা) সভাপতি বলদেব সিং সিরসা, গাব্বা সংঘর্ষ সমিতির সভাপতি সুখপাল সিং দফফার, বিকেইউ (আজাদ) প্রধান অমরজিত সিং রাদা, বিকেইউ (মাঝা) সহ-সভাপতি সাতনাম সিং জাফরওয়াল, বিকেইউ (খোসা) সাধারণ সম্পাদক গুরিন্দর সিং ভাঙ্গু সহ আরো বেশ কিছু কৃষক নেতা উপস্থিত ছিলেন।

সূত্র- দ্য ট্রিবিউন

বিশদে পড়তে এখানে ক্লিক করুন

আন্দোলনের চাপে কৃষক আন্দোলনের সময় দায়ের করা বেশিরভাগ মামলা প্রত্যাহার করবে হরিয়ানা সরকার

হরিয়ানার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল ভিজ বুধবার বলেছেন যে, “প্রত্যাহৃত তিনটি বিতর্কিত কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলনের সময় কৃষকদের বিরুদ্ধে দায়ের করা বেশিরভাগ মামলা প্রত্যাহার করা হয়েছে এবং বাকি মামলা গুলিও প্রত্যাহারের প্রক্রিয়া চলছে”। ২৪ নভেম্বর আম্বালায় ভারতীয় কিষাণ ইউনিয়ন (চারুনি) দ্বারা নির্ধারিত আন্দোলনের আগে কৃষকদের অন্যতম দাবি পরোক্ষে মেনে নিতে বাধ্য হল হরিয়ানা সরকার।

কৃষক সংগঠনের একটি প্রতিনিধি দল ২০২০ সালে কুরুক্ষেত্রে দুর্বল সূর্যমুখী বীজের একটি ঘটনার বিষয়ে হরিয়ানার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর সঙ্গে তার বাসভবনে দেখা করেন। সেখানেই মন্ত্রী চাপের মুখে এই পদক্ষেপের আশ্বাস দেন। যাই হোক, মন্ত্রীর আশ্বাস সত্ত্বেও কৃষকরা তাদের ২৪ নভেম্বরের বিক্ষোভ কর্মসূচি অব্যাহত রাখছেন।

সূত্র- হিন্দুস্তান টাইমস

বিশদে পড়তে এখানে ক্লিক করুন

আরও খবর

সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘বিধায়ক নিরুদ্দেশ’ পোস্টের ফলে কর্ণাটকে এক কৃষক গ্রেফতার

সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টে কর্ণাটকের মন্ত্রী গোবিন্দ করজোলকে অপমান করার অভিযোগে বাগলকোট জেলা পুলিশ এক কৃষককে গ্রেপ্তার করেছে। সেই কৃষকের নাম নিঙ্গাপ্পা মাতাগারকে, তিনি শিরোল গ্রামের বাসিন্দা। যখন বাগলকোটের কৃষকরা ন্যায্য দামের জন্য চিনি কারখানার সঙ্গে লড়াই করছিলেন, তাঁর সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টে মাতাগার লেখেন যে বিধায়ক করজোল জেলা থেকে নিখোঁজ ছিলেন। “বিধায়ক নিখোঁজ। সে চুপ করে আছে। গোবিন্দ কোথায় আপনি? দয়া করে বাড়িতে আসুন” এই ছিল কৃষকের পোস্টের বিষয়বস্তু।

অভিযুক্তকে পরে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ কর্তৃপক্ষ।

সূত্র- দ্য হিন্দু

বিশদে পড়তে এখানে ক্লিক করুন

কৃষকের থেকে লুট: ১৬ নভেম্বর ২০২২

ট্যাগ করা হয়েছে:
এই নিবন্ধটি শেয়ার করুন
মতামত দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *