জয় কিষাণ: ৭ মার্চ ২০২৩

জয় কিষাণ ডেস্ক
লিখেছেন জয় কিষাণ ডেস্ক পড়ার সময় 3

বাঁকুড়ায় রাস্তার ওপর আলু ফেলে প্রতিবাদ

উৎপাদিত আলুর দাম নেই, এই অবস্থায় দালাল এবং তৃণমূল নেতাদের বাদ দিয়ে সরকারি উদ্যোগে কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি এক হাজার টাকা ক্যুইন্ট্যাল প্রতি আলু কেনা, রাজ্যের বাইরে আলু রফতানি, জেলার হিমঘরগুলিতে আলু সংরক্ষণ করার ক্ষেত্রে কৃষকদের অগ্রাধিকার-সহ বেশ কিছু দাবিতে আন্দোলনে নামলেন বাম গণসংগঠন সারা ভারত কৃষক সভার নেতা ও কর্মীরা।

রবিবার বাঁকুড়ায় ওন্দার চৌমাথা মোড়ে রাস্তার ওপর আলু ফেলে বিক্ষোভ দেখান তাঁরা। সংগঠনের  দাবি, এই মুহূর্তে উৎপাদিত আলুর দাম নেই। ঋণভারে জর্জরিত আলু চাষিরা আত্মহত্যার পথ বেছে নিচ্ছেন। এই অবস্থায় আলু চাষিদের স্বার্থরক্ষায় রাজ্য সরকারকে এগিয়ে আসতে হবে। একইসঙ্গে আগামী ১১ মার্চ রাজ্যজুড়ে এই ইস্যুতে আন্দোলন কর্মসূচি পালন করবেন বলেও তাঁরা জানান।

সূত্র- খাস খবর

বিশদে পড়তে এখানে ক্লিক করুন

চা শ্রমিকদের দাবি নিয়ে অবস্থান বিক্ষোভ

নিজস্ব সংবাদদাতা: চা শ্রমিকদের পিএফ-সহ ৫ দফা দাবিতে দ্বিতীয়বার অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করেছে আইএনটিটিইউসি। রবিবার শিলিগুড়িতে বিজেপি সাংসদ রাজু বিস্তের বাড়ির সামনে ওই বিক্ষোভ হয়।

এই বিক্ষোভে নেতৃত্ব দেন শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটক ও আইএনটিটিইউসি-র রাজ্য সভাপতি ঋতব্রত ব্যানার্জি। এদিন শ্রমমন্ত্রী বলেন, শ্রমিকেরা পিএফের টাকা পাচ্ছেন না। কারণ পিএফের সঙ্গে এবার আধার যুক্ত করা হয়েছে। এদিকে, আধার কার্ড তৈরি হচ্ছে না। আধার কার্ড দিল্লির সরকার তৈরি করে। পিএফও দিল্লি সরকারের অধীনে। তাদের গাফিলতির জন্য লক্ষ লক্ষ চা-শ্রমিক আজ বঞ্চিত হচ্ছেন। তাঁদের ন্যায্য টাকা, ন্যায্য পাওনা পাচ্ছেন না। যত দিন না এই সমস্যা মিটবে, আমাদের আন্দোলন চলবে।’

শ্রমমন্ত্রী আরও বলেন, “দীর্ঘদিন ধরে দেখা যাচ্ছে, শ্রমিকদের স্বাস্থ্যের বিষয়টি দেখা হচ্ছে না। স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলি বেহাল হয়ে পড়ে আছে। কেন্দ্রীয় সরকারের এদিকেও নজর নেই”।

জমি অধিগ্রহণ রুখছেন তেলেঙ্গানার কৃষকরা

নিজস্ব সংবাদদাতা: তেলেঙ্গানায় কৃষিজমির ওপর বস্ত্র উৎপাদনকারী সংস্থা কাইটেক্স গ্রুপ তাদের নতুন কারখানা তৈরি করতে বদ্ধপরিকর। অন্যদিকে এই সংস্থার বিরুদ্ধে প্রতিবাদে নেমেছেন কৃষকরা। কাইটেক্স গ্রুপ জানিয়েছে তেলেঙ্গানায় তাদের টুইন গার্মেন্টস ইউনিট জুন মাসে চালু হবে। অন্তত তেমনটাই আশা করা হচ্ছে সংস্থার তরফে।

কৃষকদের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, তাঁরা এই জমি অধিগ্রহণের তীব্র বিরোধিতা করছেন। সংস্থার পক্ষ থেকে কোনও রকম সদুত্তর না পেলে তাঁরা বৃহত্তর আন্দোলনে শামিল হবেন।

সেচ ব্যবস্থার গাফিলতিতে জল সংকটে চাষীরা

জয়সালমীরের চাষিরা ইন্দিরা গান্ধী সেচ প্রকল্প থেকে যথাযথ জল না পাওয়ার জন্য আন্দোলন শুরু করেছেন। তাঁদের মতে গান্ধীনগর নাহার প্রযোজনা বিভাগের কর্মচারীদের গাফিলতির কারণে, তাঁরা চাষের জন্য উপযুক্ত পরিমাণের জল পাচ্ছেন না। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে চাষাবাদ।

২০২৩ সালের যোজনা অনুযায়ী রবি কর্পের জন্য নির্ধারিত হয় ২১০০ কিউসেক জল, কিন্তু সরকারি কর্মচারীদের গাফিলতায় তাঁরা পাচ্ছেন কেবল ৫০০-৬০০ কিউসেক জল। কৃষক নেতা সাভান খান জানিয়েছেন ‘উপযুক্ত জল না পেয়ে কৃষকরা হতাশ হয়ে পরছেন। ৫০-৬০% জলের অভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে জয়সলমীর।

সূত্র- টাইমস অফ ইন্ডিয়া

বিশদে পড়তে এখানে ক্লিক করুন

ট্যাগ করা হয়েছে:
এই নিবন্ধটি শেয়ার করুন
মতামত দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *