আজ রাজভবন অভিযান, মোদি-শাহ সরকারের কাছে দাবি তুলবেন অন্নদাতারা

জয় কিষাণ ডেস্ক
লিখেছেন জয় কিষাণ ডেস্ক পড়ার সময় 5

আজ, সংবিধান দিবস। গোটা দেশের কৃষকরা তাঁদের নিজ নিজ রাজ্যের রাজ্যপালদের মাধ্যমে দেশের রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মূর্মুকে স্মরণ করাতে চাইছেন যে দেশের সকল কৃষিজীবী মানুষের কাছে যেসব প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার, আজও সেগুলি বাস্তবায়িত হয়নি। আর তাই আবারও রাস্তাকেই একমাত্র রাস্তা হিসাবে বেছে নিয়েছেন কৃষক সমাজ। বকেয়া দাবিগুলো পূরণ করার দাবিতে তাঁরা ফের রাস্তায়। শনিবার গোটা দেশে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা রাজভবন অভিযানের যে ডাক দিয়েছে, জানা যাচ্ছে এই কর্মসূচির লক্ষ্য, রাজ্যপালদের মাধ্যমে রাষ্ট্রপতির কাছে স্মারকলিপি পেশ করা। কেন্দ্রীয় সরকার কৃষকদের যেসব দাবি বকেয়া রেখেছে, সেই ব্যাপারে রাষ্ট্রপতির দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাইছে মোর্চা। যাতে কেন্দ্রীয় সরকারকে তাদের প্রতিশ্রুতিগুলো পূরণ করার ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করতে পারেন। মোর্চা সূত্রে এমনই জানা যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, সংযুক্ত কিষাণ কিষাণ মোর্চা গত বছর অর্থাৎ ২০২১ সালের ২১ নভেম্বর কেন্দ্রীয় সরকারকে লেখা একটি চিঠিতে তার অমীমাংসিত সমস্যার দিকে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল। এর জবাবে ৯ ডিসেম্বর, ২০২১ তারিখে কৃষি ও কৃষক কল্যাণ মন্ত্রকের সচিব শ্রী সঞ্জয় আগরওয়াল সংযুক্ত কিষাণ মোর্চাকে ৯ ডিসেম্বর একটি চিঠি লিখেছিলেন। ওই চিঠিতে তিনি ইউনিয়ন সরকারের পক্ষ থেকে কৃষকদের বেশ কয়েকটি দাবিপূরণে আশ্বাস দেন এবং দিল্লির বুকে ঐতিহাসিক আন্দোলন প্রত্যাহারের আহ্বান জানান। কেন্দ্রীয় সরকারের এই চিঠিকে গুরুত্ব দিয়ে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা ১১ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখে, দিল্লির সীমান্তে মোর্চার ব্যানারে কৃষকদের বিক্ষোভ অবস্থান প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। কিন্তু এরপর এগারো মাসের বেশি সময় অতিক্রান্ত হয়ে গেলেও কৃষকদের দাবিপূরণের কোনো প্রতিশ্রুতিই পূরণ করেনি কেন্দ্রীয় সরকার।

আর তাই আবারও যেসব দাবিতে রাজ্যপালদের মাধ্যমে রাষ্ট্রপতির কাছে স্মারকলিপি পেশ করে কেন্দ্রের সরকারকে হুঁশিয়ারি দিতে চলেছে।

মোর্চার প্রথম দাবি এমএসপি আইন সংক্রান্ত। মোর্চার বক্তব্য, স্বামীনাথন কমিশনের সুপারিশের ভিত্তিতে সি-টু প্লাস ৫০ (C2 + 50) শতাংশের সূত্র-সহ সমস্ত ফসলের জন্য ন্যূনতম সহায়ক মূল্য (MSP) নিশ্চিত করার জন্য একটি আইন প্রণয়ন করতে হবে কেন্দ্রকে।

এছাড়াও, ন্যূনতম সহায়ক মূল্য বিষয়ক কমিটির বিষয়েও সুনির্দিষ্ট দাবি তুলেছে মোর্চা। এমএসপি বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকার ইতিপূর্বে যে কমিটি গঠন করেছে, তার ঘোষিত এজেন্ডা কৃষকদের দাবি এবং কেন্দ্রীয় সরকারের দেওয়া প্রতিশ্রুতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় বলে দাবি মোর্চার। তাদের দাবি, এই কমিটিকে বরখাস্ত করে সমস্ত ফসলের ন্যূনতম সহায়ক মূলের আইনি নিশ্চয়তার জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতিশ্রুতি অনুসারে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার প্রতিনিধিদের অন্তর্ভুক্ত করে কৃষকদের যথাযথ প্রতিনিধিত্ব-সহ এমএসপি’র উপর একটি নতুন কমিটি পুনর্গঠন করতে হবে।
এছাড়াও কৃষকদের ঋণ ও কৃষক আত্মহত্যা সংক্রান্ত সমস্যা সমাধানের ব্যাপারেও দাবি তুলেছে মোর্চা। তাদের বক্তব্য, কৃষিতে ক্রমবর্ধমান কৃষিব্যয় ও ফসলের জন্য উপযুক্ত মূল্য না পাওয়ার কারণে ভারী ঋণের জালে আটকে পড়ছেন দেশের ৮০ শতাংশ কৃষক। এর ফলে অনেক চাষি আত্মহত্যা করতে বাধ্য হচ্ছেন। এমতাবস্থায় সকল কৃষকের সকল প্রকার ঋণ মকুব করার দাবি তুলেছে মোর্চা।

অবিলম্বে ‘বিদ্যুৎ সংশোধনী বিল, ২০২২’ প্রত্যাহার করার দাবিও পেশ করেছে মোর্চা। তাদের বক্তব্য, গত বছর অর্থাৎ ২০২১ সালের ৯ ডিসেম্বর সংযুক্ত কিষাণ মোর্চাকে লেখা উক্ত চিঠিতে কেন্দ্রীয় সরকার একটি লিখিত আশ্বাস দিয়েছিল যে, “বিলটি মোর্চার সঙ্গে আলোচনার পরেই সংসদে পেশ করা হবে।” এতদসত্ত্বেও কোনো আলোচনা ছাড়াই এই বিল সংসদে পেশ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার।

উত্তরপ্রদেশের লখিমপুর খেরি জেলার তিকোনিয়ায় চার কৃষক ও একজন সাংবাদিককে হত্যায় অভিযুক্ত কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় মিশ্র টেনিকে মন্ত্রিসভা থেকে বরখাস্ত করে জেলে পাঠানোর দাবিতে সোচ্চার হয়েছে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা।

এই সূত্রে তাদের আরও দাবি, লখিমপুর খেরি হত্যাকাণ্ড ইস্যুতে বন্দি নিরপরাধ কৃষকদের অবিলম্বে মুক্তি দিতে হবে এবং তাঁদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে। শহিদ কৃষকদের পরিবার ও আহত কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে হবে।

সকল ফসলের জন্য ব্যাপক ও কার্যকর শস্য বিমা বাস্তবায়িত করার ব্যাপারেও দাবি তুলেছে মোর্চা। কেন্দ্রীয় সরকারকে। এবং সকল মাঝারি, ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষক এবং কৃষি-মজুরদের জন্য প্রতি মাসে ৫ হাজার টাকা কৃষক পেনশনের প্রকল্প চালু করার নয়া দাবিও মোর্চার দাবি সনদে উঠে এসেছে মোর্চা সূত্রে জানা গেছে।
দিল্লির ঐতিহাসিক কৃষক আন্দোলনের সময়, বিজেপি শাসিত রাজ্য-সহ অন্যান্য রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলোয় কৃষকদের উপর যেসব ‘মিথ্যা মামলা’ আরোপ করা হয়েছে, অবিলম্বে সেগুলো প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন মোর্চা নেতৃত্ব। কৃষক আন্দোলনে শহীদ মোট ৭৩৪ জনের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ এবং তাঁদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থার দাবিও রাখা হচ্ছে এই স্মারকলিপিতে। এছাড়া সিংঘু সীমান্তে শহিদ কৃষকদের জন্য একটি স্মৃতিসৌধ নির্মাণের দাবি করেছেন মোর্চা নেতৃত্ব।

মোর্চার কেন্দ্রীয় সমন্বয় সমিতির নেতা অভীক সাহার বক্তব্য, “এই স্মারকলিপির মাধ্যমে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে ক্ষোভ ব্যক্ত করছেন দেশের অন্নদাতারা। কেন্দ্রীয় সরকারকে তার লিখিত প্রতিশ্রুতি মনে করিয়ে দেওয়ার পাশপাশি এবং দেশের কৃষকদের সম্পূর্ণ ঋণ মুকুব, কৃষক বিমা ও কৃষক পেনশনের দাবি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব পূরণ করার জন্য আমরা মহামান্য রাষ্ট্রপতিকে অনুরোধ করছি। আমরা তাঁর মাধ্যমে কেন্দ্রীয় সরকারকে জানাতে চাইছি যে কৃষকদের ধৈর্যের পরীক্ষা নেওয়া বন্ধ করুন। কেন্দ্রীয় সরকার যদি কৃষকদের দেওয়া প্রতিশ্রুতি কার্যকর না করে এবং দায়িত্ব এড়িয়ে যায়, সেক্ষেত্রে ব্যাপক ও বৃহত্তর আন্দোলনে যাওয়া ব্যতীত কৃষকদের কাছে আরও অন্য কোনো রাস্তা খোলা থাকবে না।“

ট্যাগ করা হয়েছে:
এই নিবন্ধটি শেয়ার করুন
মতামত দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *